ঢাকা ০৫:৫৪ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১১ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
শিশু অপহরণ মামলার যাবজ্জীবন আসামি ১৩ বছর পর গ্রেফতার যুগান্তরের ২৫ বর্ষে পদার্পণ উপলক্ষে আলোচনা ও দোয়া অনুষ্ঠান লালপুরে মেধাবীদের শিক্ষাবৃত্তি ও অসহায় নারীদের সেলাই মেশিন বিতরণ মাদকমুক্ত ইন্দুরকানী গড়তে আমাদের করণীয় শীর্ষক’ আলোচনা সভা রিয়াদে Dxnএর আয়োজনে আন্তজার্তিক মাতৃভাষা দিবস পালন ও সেমিনার অনুষ্ঠিত ওআইসি সদস্য দেশগুলোর তথ্যমন্ত্রীদের সম্মেলনে যোগ দিতে তুরস্কের উদ্দেশ্যে ঢাকা ছেড়েছেন তথ্য ও সম্প্রচার প্রতিমন্ত্রী নড়াইলে হারিয়ে যাওয়া ২০টি মোবাইল আনুষ্ঠানিকভাবে ভুক্তভোগীদের নিকট হস্তান্তর পরীক্ষা কেন্দ্রে দায়িত্ব অবহেলা পাঁচ শিক্ষককে অব্যাহতি ও দুই শিক্ষর্থীকে বহিস্কার ইসদাইরে অবৈধ ক্যাবল ব্যবসাায়ী বহিস্কৃত যুবলীগ নেতার ফারুক আহমেদ শিমুল ও মনিরুজ্জামান ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান, অফিস সীলগালা লালপুরে বিএনপির চার নেতাকে কারাগারে পাঠিয়েছে আদালত

রাজস্থলীর ৪টি পুজামান্ডপে প্রতিমা বিসর্জনে শেষ হলো দুর্গোৎসব।

মিন্টু কান্তি নাথ রাজস্থলী (রাঙ্গামাটি)
  • আপডেট সময় : ০৮:৫২:০৪ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ২৫ অক্টোবর ২০২৩ ৩৭ বার পড়া হয়েছে
দৈনিক যখন সময় অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

মিন্টু কান্তি নাথ রাজস্থলী (রাঙ্গামাটি) প্রতিনিধিঃ

মহা ষষ্ঠীর মধ্য দিয়ে শুরু হয় সনাতন ধর্মাবলম্বীদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব শারদীয় দুর্গোৎসব। পাঁচ দিনব্যাপী এই দুর্গোৎসব উদযাপন শেষে আজ বিকেলে প্রতিমা বিসর্জনে যোগ দিয়েছে সনাতন ধর্মের অনুসারীরা।

রাজস্থলী উপজেলার,উপজেলা সদর ও ৩নং বাঙ্গালহালিয়াতে জাঁকজমক আয়োজনের মধ্য দিয়ে শেষ হয়েছে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের শারদীয়া দুর্গাৎসবের। দেশের বিভিন্ন জেলার মতো রাজস্থলীতে ও উৎসবমুখর পরিবেশে দুর্গোৎসব উদযাপন করছেন সনাতন ধর্মাবলম্বীরা।
মঙ্গলবার (৫ অক্টোবর) সকাল থেকে দুর্গাপূজায় মাকে বিদায় জানানোর জন্য মন্দিরে মন্দিরে চলে সিঁদুর খেলা। শেষ বেলায় দেবী দুর্গার আরাধনায় ব্যস্ত ভক্তরা। ঢাকের তালে আর কাঁসার বর্ণিল আওয়াজে খুশিতে মেতে ওঠে শিশু থেকে বৃদ্ধ বয়সী নারী পুরুষ।বিকেল ৪টায় মন্দিরগুলো থেকে চন্দ্রঘোনা ফেরিঘাট কর্ণফুলী নদীতে প্রতিমা বিসর্জনে উদ্দেশ্যে বের হন সনাতন ধর্মাবলম্বীরা। এ সময় সব অশুভ শক্তির বিনাশ ও শুভ শক্তির বিকাশের মাধ্যমে অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ গড়ে উঠবে- এ প্রার্থনা করেন তারা।মাকে বিদায় জানাতে গিয়ে কান্নায় ভরে যায় ভক্তদের মন,ভক্ত ও সাধারণ দর্শণার্থীদের পদচারণায় মুখরিত হয়ে ওঠে মণ্ডপগুলো।

বেলা গড়িয়ে পড়ার সাথে সাথে ঢাক-ঢোলের তালে প্রতিমা বিসর্জন দিতে সবাই হেঁটে আর ট্রাকে করে ছুটতে থাকে চন্দ্রঘোনার কর্ণফুলী নদীর তীরে ও পুকুর পার। ধুপ, মোমবাতি আর তেল দিয়ে মাকে প্রণামের পাশাপাশি ভক্তরা কামনা করে আগামী দিনের সুখ শান্তি। এসময় একে একে নদীর ও পুকুরের পানিতে বিসর্জন দেয়া হয় দেবী দুর্গাসহ সকল প্রতিমাকে।

এদিকে সকাল ৯টা হতে রাজস্থলী হরি মন্দির, ছাগল খাইয়া মন্দির, দক্ষীনেশ্বর কালিমন্দির, ও কুটিরিযা পাড়া শিব মন্দির দুর্গাপূজা উদযাপন পরিষদের পূজামণ্ডপে বিজয়া দশমীর পুষ্পাঞ্জলি গ্রহণের জন্য ভীড় জমায় অসংখ্য ভক্ত। এসময় পুষ্পাঞ্জলি প্রদান করেন উপজেলা সদর, সহ বাঙালহালিয়ার সনাতনী ভক্তবৃন্দ।পুষ্পাঞ্জলি শেষে সনাতন ধর্মালম্বীরা একে অপরের সাথে শুভেচ্ছা বিনিময় করে দেবীর বিসর্জনের বার্তা জানায়,মণ্ডপে মণ্ডপে চলে ঢাক-ঢোল ও ধর্মীয় আরতি। ধুপ আর মোমবাতির আলোয় আলোকিত হয়ে ওঠে পুরো পূজামণ্ডপ। প্রশাসনের সহযোগিতায় সুন্দরভাবে পূজা উদযাপন করতে পারায় কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছে সংশ্লিষ্টরা।


প্রসঙ্গত: রাঙামাটি জেলার রাজস্থলীতে এবার ৪টি পূজামণ্ডপে শারদীয়া দুর্গাপূজা অনুষ্ঠিত হয়েছে, আর সুন্দর ও সফলভাবে পূজা উদযাপন করতে পেরে মহা খুশি সনাতনী ভক্তবৃন্ধরা

নিউজটি শেয়ার করুন

ট্যাগস :

রাজস্থলীর ৪টি পুজামান্ডপে প্রতিমা বিসর্জনে শেষ হলো দুর্গোৎসব।

আপডেট সময় : ০৮:৫২:০৪ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ২৫ অক্টোবর ২০২৩

মিন্টু কান্তি নাথ রাজস্থলী (রাঙ্গামাটি) প্রতিনিধিঃ

মহা ষষ্ঠীর মধ্য দিয়ে শুরু হয় সনাতন ধর্মাবলম্বীদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব শারদীয় দুর্গোৎসব। পাঁচ দিনব্যাপী এই দুর্গোৎসব উদযাপন শেষে আজ বিকেলে প্রতিমা বিসর্জনে যোগ দিয়েছে সনাতন ধর্মের অনুসারীরা।

রাজস্থলী উপজেলার,উপজেলা সদর ও ৩নং বাঙ্গালহালিয়াতে জাঁকজমক আয়োজনের মধ্য দিয়ে শেষ হয়েছে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের শারদীয়া দুর্গাৎসবের। দেশের বিভিন্ন জেলার মতো রাজস্থলীতে ও উৎসবমুখর পরিবেশে দুর্গোৎসব উদযাপন করছেন সনাতন ধর্মাবলম্বীরা।
মঙ্গলবার (৫ অক্টোবর) সকাল থেকে দুর্গাপূজায় মাকে বিদায় জানানোর জন্য মন্দিরে মন্দিরে চলে সিঁদুর খেলা। শেষ বেলায় দেবী দুর্গার আরাধনায় ব্যস্ত ভক্তরা। ঢাকের তালে আর কাঁসার বর্ণিল আওয়াজে খুশিতে মেতে ওঠে শিশু থেকে বৃদ্ধ বয়সী নারী পুরুষ।বিকেল ৪টায় মন্দিরগুলো থেকে চন্দ্রঘোনা ফেরিঘাট কর্ণফুলী নদীতে প্রতিমা বিসর্জনে উদ্দেশ্যে বের হন সনাতন ধর্মাবলম্বীরা। এ সময় সব অশুভ শক্তির বিনাশ ও শুভ শক্তির বিকাশের মাধ্যমে অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ গড়ে উঠবে- এ প্রার্থনা করেন তারা।মাকে বিদায় জানাতে গিয়ে কান্নায় ভরে যায় ভক্তদের মন,ভক্ত ও সাধারণ দর্শণার্থীদের পদচারণায় মুখরিত হয়ে ওঠে মণ্ডপগুলো।

বেলা গড়িয়ে পড়ার সাথে সাথে ঢাক-ঢোলের তালে প্রতিমা বিসর্জন দিতে সবাই হেঁটে আর ট্রাকে করে ছুটতে থাকে চন্দ্রঘোনার কর্ণফুলী নদীর তীরে ও পুকুর পার। ধুপ, মোমবাতি আর তেল দিয়ে মাকে প্রণামের পাশাপাশি ভক্তরা কামনা করে আগামী দিনের সুখ শান্তি। এসময় একে একে নদীর ও পুকুরের পানিতে বিসর্জন দেয়া হয় দেবী দুর্গাসহ সকল প্রতিমাকে।

এদিকে সকাল ৯টা হতে রাজস্থলী হরি মন্দির, ছাগল খাইয়া মন্দির, দক্ষীনেশ্বর কালিমন্দির, ও কুটিরিযা পাড়া শিব মন্দির দুর্গাপূজা উদযাপন পরিষদের পূজামণ্ডপে বিজয়া দশমীর পুষ্পাঞ্জলি গ্রহণের জন্য ভীড় জমায় অসংখ্য ভক্ত। এসময় পুষ্পাঞ্জলি প্রদান করেন উপজেলা সদর, সহ বাঙালহালিয়ার সনাতনী ভক্তবৃন্দ।পুষ্পাঞ্জলি শেষে সনাতন ধর্মালম্বীরা একে অপরের সাথে শুভেচ্ছা বিনিময় করে দেবীর বিসর্জনের বার্তা জানায়,মণ্ডপে মণ্ডপে চলে ঢাক-ঢোল ও ধর্মীয় আরতি। ধুপ আর মোমবাতির আলোয় আলোকিত হয়ে ওঠে পুরো পূজামণ্ডপ। প্রশাসনের সহযোগিতায় সুন্দরভাবে পূজা উদযাপন করতে পারায় কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছে সংশ্লিষ্টরা।


প্রসঙ্গত: রাঙামাটি জেলার রাজস্থলীতে এবার ৪টি পূজামণ্ডপে শারদীয়া দুর্গাপূজা অনুষ্ঠিত হয়েছে, আর সুন্দর ও সফলভাবে পূজা উদযাপন করতে পেরে মহা খুশি সনাতনী ভক্তবৃন্ধরা