ঢাকা ১২:৪৮ অপরাহ্ন, শনিবার, ০২ মার্চ ২০২৪, ১৯ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
নড়াইলে ডিবি পুলিশের অভিযানে ইয়াবাসহ গ্রেফতার বেইলি রোডের আগুন নিয়ন্ত্রণে প্রশংসনীয় ভূমিকা পালন করেছেন র‍্যাব-৩ নাটোরের লালপুর তাফসীর মাহফিলে খৃষ্টান যুবকের ইসলাম ধর্ম গ্রহন নারায়ণগঞ্জ  শহিদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে বইমেলায় কবিদের উত্তরীয় দিয়ে বরণ কুড়িগ্রামে ৫.১ কেজি গাঁজাসহ মাদক কারবারি গ্রেফতার কৃষক হত্যা মামলায় জয়পুরহাটে ৯ জনের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড কুড়িগ্রামের উলিপুরে রাস্তা পাকা করন কাজের উদ্বোধন গাজীপুরে মাদ্রাসার সুপার ও সভাপতির দূর্ণীতি, অপসারণ দাবিতে মানববন্ধন নড়াইলের শান্তা সেনের মেডেকেল শিক্ষা জীবন সম্পন্ন করতে দারিদ্র বাবা-মায়ের দুঃশিন্তা নড়াইলে শিশু নুসরাত হত্যার রহস্য উদঘাটন ঘাতক সৎ মা গ্রেফতার

মানবতাবিরোধী অপরাধে নকলার ৩ জনের আমৃত্যু কারাদণ্ড

মাহদি হাসান, শেরপুর প্রতিনিধি
  • আপডেট সময় : ০৯:০৪:৫৪ অপরাহ্ন, সোমবার, ১২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ ৫৪ বার পড়া হয়েছে
দৈনিক যখন সময় অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

মাহদি হাসান, শেরপুর প্রতিনিধিঃ

একাত্তরের যুদ্ধাপরাধের দায়ে শেরপুরের তিনজনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল।

দণ্ডিতরা হলেন- কুর্শা বাদাগৈড় খইড়া পাড়া মহল্লার সাবেক পৌর, মেয়র মোখলেছুর রহমান তারা। টালকি ইউনিয়নের বিবিরচর মহল্লার এ কে এম আকরাম হোসেন,বাজারদি মহল্লার এফ এম আমিনুজ্জামান ফারুক

মুক্তিযুদ্ধের সময় নকলা উপজেলায় ছয়জনকে হত্যা, অপহরণ, আটক-নির্যাতন ও অগ্নিসংযোগের মত অভিযোগে দোষী সাব্যস্ত করে তাদের এই সাজা দেওয়া হয়েছে।

বিচারপতি মো. শাহিনুর ইসলাম নেতৃত্বাধীন তিন বিচারকের আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল সোমবার এ মামলার রায় ঘোষণা করে। ট্রাইব্যুনালের অপর দুই সদস্য হলেন বিচারপতি আবু আহমেদ জমাদার ও বিচারপতি কে এম হাফিজুল আলম।

আদালতে প্রসিকিউশন পক্ষে এ মামলা লড়েন প্রসিকিউটর সৈয়দ হায়দার আলী, সুলতান মাহমুদ শিমন ও রেজিয়া সুলতানা চমন। আসামিপক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী আবদুস সোবহান তরফদার ও আবদুস সাত্তার।

গত ২৪ জানুয়ারি উভয়পক্ষের যুক্তিতর্ক শেষে মামলাটি রায়ের জন্য অপেক্ষমান রেখেছিল ট্রাইব্যুনাল।

নকলা উপজেলার এই তিন আসামি একাত্তরে ছিলেন মুসলিম লীগের সদস্য ছিলেন বলে জানা যায়। মুক্তিযুদ্ধ শুরু হলে তারা রাজাকার বাহিনীতে যোগ দেন।

যুদ্ধের সময় তাদের বিরুদ্ধে নকলার বিভিন্ন স্থানে ছয়জনকে হত্যা, অপহরণ, আটক, নির্যাতন, অগ্নিসংযোগের মত মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগ আনা হয় এ মামলায়।

মামলার নথি থেকে জানা যায়, নকলার চার রাজাকারের বিরুদ্ধে একাত্তরে মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগ তদন্ত করে ২০১৭ সালের ২৬ জুলাই প্রতিবেদন দাখিল করে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের তদন্ত সংস্থা।

২০১৮ সালের ৩০ অগাস্ট চার আসামির বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করে বিচার শুরুর আদেশ দেয় আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল। বিচার চলাকালে বার্ধক্যজনিত কারণে আসামি এমদাদুল হক খাজা মারা যান।

নিউজটি শেয়ার করুন

ট্যাগস :

মানবতাবিরোধী অপরাধে নকলার ৩ জনের আমৃত্যু কারাদণ্ড

আপডেট সময় : ০৯:০৪:৫৪ অপরাহ্ন, সোমবার, ১২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

মাহদি হাসান, শেরপুর প্রতিনিধিঃ

একাত্তরের যুদ্ধাপরাধের দায়ে শেরপুরের তিনজনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল।

দণ্ডিতরা হলেন- কুর্শা বাদাগৈড় খইড়া পাড়া মহল্লার সাবেক পৌর, মেয়র মোখলেছুর রহমান তারা। টালকি ইউনিয়নের বিবিরচর মহল্লার এ কে এম আকরাম হোসেন,বাজারদি মহল্লার এফ এম আমিনুজ্জামান ফারুক

মুক্তিযুদ্ধের সময় নকলা উপজেলায় ছয়জনকে হত্যা, অপহরণ, আটক-নির্যাতন ও অগ্নিসংযোগের মত অভিযোগে দোষী সাব্যস্ত করে তাদের এই সাজা দেওয়া হয়েছে।

বিচারপতি মো. শাহিনুর ইসলাম নেতৃত্বাধীন তিন বিচারকের আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল সোমবার এ মামলার রায় ঘোষণা করে। ট্রাইব্যুনালের অপর দুই সদস্য হলেন বিচারপতি আবু আহমেদ জমাদার ও বিচারপতি কে এম হাফিজুল আলম।

আদালতে প্রসিকিউশন পক্ষে এ মামলা লড়েন প্রসিকিউটর সৈয়দ হায়দার আলী, সুলতান মাহমুদ শিমন ও রেজিয়া সুলতানা চমন। আসামিপক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী আবদুস সোবহান তরফদার ও আবদুস সাত্তার।

গত ২৪ জানুয়ারি উভয়পক্ষের যুক্তিতর্ক শেষে মামলাটি রায়ের জন্য অপেক্ষমান রেখেছিল ট্রাইব্যুনাল।

নকলা উপজেলার এই তিন আসামি একাত্তরে ছিলেন মুসলিম লীগের সদস্য ছিলেন বলে জানা যায়। মুক্তিযুদ্ধ শুরু হলে তারা রাজাকার বাহিনীতে যোগ দেন।

যুদ্ধের সময় তাদের বিরুদ্ধে নকলার বিভিন্ন স্থানে ছয়জনকে হত্যা, অপহরণ, আটক, নির্যাতন, অগ্নিসংযোগের মত মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগ আনা হয় এ মামলায়।

মামলার নথি থেকে জানা যায়, নকলার চার রাজাকারের বিরুদ্ধে একাত্তরে মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগ তদন্ত করে ২০১৭ সালের ২৬ জুলাই প্রতিবেদন দাখিল করে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের তদন্ত সংস্থা।

২০১৮ সালের ৩০ অগাস্ট চার আসামির বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করে বিচার শুরুর আদেশ দেয় আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল। বিচার চলাকালে বার্ধক্যজনিত কারণে আসামি এমদাদুল হক খাজা মারা যান।