ঢাকা ০৯:৩০ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১২ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
শিশু অপহরণ মামলার যাবজ্জীবন আসামি ১৩ বছর পর গ্রেফতার যুগান্তরের ২৫ বর্ষে পদার্পণ উপলক্ষে আলোচনা ও দোয়া অনুষ্ঠান লালপুরে মেধাবীদের শিক্ষাবৃত্তি ও অসহায় নারীদের সেলাই মেশিন বিতরণ মাদকমুক্ত ইন্দুরকানী গড়তে আমাদের করণীয় শীর্ষক’ আলোচনা সভা রিয়াদে Dxnএর আয়োজনে আন্তজার্তিক মাতৃভাষা দিবস পালন ও সেমিনার অনুষ্ঠিত ওআইসি সদস্য দেশগুলোর তথ্যমন্ত্রীদের সম্মেলনে যোগ দিতে তুরস্কের উদ্দেশ্যে ঢাকা ছেড়েছেন তথ্য ও সম্প্রচার প্রতিমন্ত্রী নড়াইলে হারিয়ে যাওয়া ২০টি মোবাইল আনুষ্ঠানিকভাবে ভুক্তভোগীদের নিকট হস্তান্তর পরীক্ষা কেন্দ্রে দায়িত্ব অবহেলা পাঁচ শিক্ষককে অব্যাহতি ও দুই শিক্ষর্থীকে বহিস্কার ইসদাইরে অবৈধ ক্যাবল ব্যবসাায়ী বহিস্কৃত যুবলীগ নেতার ফারুক আহমেদ শিমুল ও মনিরুজ্জামান ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান, অফিস সীলগালা লালপুরে বিএনপির চার নেতাকে কারাগারে পাঠিয়েছে আদালত

বটিয়াঘাটায় এক যোগে সকল ইউনিয়নে ২১ ব্লকে আলোক ফাঁদ উৎসব পালিত।

মোঃ ইমরান হোসেন বটিয়াঘাটা(খুলনা) প্রতিনিধিঃ
  • আপডেট সময় : ০৩:৩৮:০৬ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৭ অক্টোবর ২০২৩ ১০৪ বার পড়া হয়েছে
দৈনিক যখন সময় অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

 

মোঃ ইমরান হোসেন বটিয়াঘাটা(খুলনা) প্রতিনিধিঃ সারা দেশের ন্যায় বটিয়াঘাটা উপজেলার সকল ইউনিয়নে কৃষি অফিসের উদ্যোগে শত শত কৃষক কৃষাণীদের সাথে নিয়ে গত ২ অক্টোবর আলোক ফাঁদ উৎসব পালিত হয়। জানা গেছে উপজেলার ৭ টি ইউনিয়নের ২১ টি ব্লকে শত শত কৃষকদের উপস্থিতিতে এক যোগে উৎসব মুখর পরিবেশে এ উৎসব পালিত হয়েছে। আমন ফসলের ভালো ফলনের লক্ষ্যে পোকার উপস্থিতি পর্যবেক্ষণ ও সনাক্ত করার জন্য চাষীদের উদ্বুদ্ধকরণের মাধ্যমে বিনা খরচে পোকা মাকড় দমনের লক্ষ্যে এ উৎসব পালিত হয়। কৃষি অফিস সূত্রে জানা গেছে, উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা সরদার আব্দুল মান্নান জানান, ক্ষতিকারক পোকা বিশেষ করে মাজরা ও পাতা মোড়ানোর মথ আলোতে আকৃষ্ট হয়ে আলোর কাছে আসে তখন আলোক ফাঁদের নীচে পানির পাত্রে পড়ে মারা যায়। ফলে পোকা বংশ বৃদ্ধি করতে পারে না। উপসহকারী উদ্ভিদ সংরক্ষণ কর্মকর্তা ধ্রুব জ্যোতি সরকার জানান, যে সকল স্থানে আলোক ফাঁদ স্থাপন করা হচ্ছে সেখানে সরেজমিনে পরিদর্শন করি এবং উপস্থিত কৃষকদের উপকারী ও অপকারী পোকা বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা করে অপকারী পোকা দমন ব্যবস্থাপনায় কৃষকদের প্রয়োজনীয় দিক নির্দেশনা দেই। বটিয়াঘাটার সদরের কৃষক সমিরন জোয়ার্দার বলেন, আমরা মনে করতাম ফসলের সব পোকাই ক্ষতি করে তবে আজকে এই আলোক ফাঁদ স্থাপন করে উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা দীপন কুমার হালদার স্যারের মাধ্যমে জানতে পারলাম জমিতে উপকারী পোকাও থাকে। এখন উপকারী ও অপকারী পোকা সনাক্ত করে অপকারী পোকা দমন করতে পারবো।

সার্বিক বিষয়ে উপজেলা কৃষি অফিসার কৃষিবিদ মোঃ আবুবকর সিদ্দিক বলেন, এবার উপজেলায় ১৭৫০০ হেক্টর জমিতে রোপা আমন ধানের চাষ হয়েছে। আর এ আমন ফসল যাতে কোনরকম ক্ষতি না হয় সে ব্যাপারে কৃষকদের উৎসাহিত করার জন্য উপজেলার ২১ টি ব্লকে আলোক ফাঁদের এ উৎসব কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে। আলোক ফাঁদ প্রক্রিয়ায় একটি ক্ষেত ও এর আশপাশের এলাকায় পোকা মাকড়ের পরিস্থিতি এবং উপস্থিতি নির্নয় করা সম্ভব হয়। এছাড়া উপজেলায় পার্চিং পদ্ধতি প্রয়োগ করে ইতিমধ্যে সফলতা পাওয়া গেছে। তিনি বলেন, কৃষকদের আরও সতর্ককরণের জন্য আমার উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তাগণ কৃষকদের নিয়ে দলীয় আলোচনা, উঠান বৈঠক, অতন্দ্র জরিপ, স্কোয়ার্ড টিম গঠন সহ লিফলেট বিতরণ করছে কৃষকদের মাঝে। আশা করি কৃষকেরা এতে দারুন ভাবে উপকৃত হবে।

নিউজটি শেয়ার করুন

ট্যাগস :

বটিয়াঘাটায় এক যোগে সকল ইউনিয়নে ২১ ব্লকে আলোক ফাঁদ উৎসব পালিত।

আপডেট সময় : ০৩:৩৮:০৬ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৭ অক্টোবর ২০২৩

 

মোঃ ইমরান হোসেন বটিয়াঘাটা(খুলনা) প্রতিনিধিঃ সারা দেশের ন্যায় বটিয়াঘাটা উপজেলার সকল ইউনিয়নে কৃষি অফিসের উদ্যোগে শত শত কৃষক কৃষাণীদের সাথে নিয়ে গত ২ অক্টোবর আলোক ফাঁদ উৎসব পালিত হয়। জানা গেছে উপজেলার ৭ টি ইউনিয়নের ২১ টি ব্লকে শত শত কৃষকদের উপস্থিতিতে এক যোগে উৎসব মুখর পরিবেশে এ উৎসব পালিত হয়েছে। আমন ফসলের ভালো ফলনের লক্ষ্যে পোকার উপস্থিতি পর্যবেক্ষণ ও সনাক্ত করার জন্য চাষীদের উদ্বুদ্ধকরণের মাধ্যমে বিনা খরচে পোকা মাকড় দমনের লক্ষ্যে এ উৎসব পালিত হয়। কৃষি অফিস সূত্রে জানা গেছে, উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা সরদার আব্দুল মান্নান জানান, ক্ষতিকারক পোকা বিশেষ করে মাজরা ও পাতা মোড়ানোর মথ আলোতে আকৃষ্ট হয়ে আলোর কাছে আসে তখন আলোক ফাঁদের নীচে পানির পাত্রে পড়ে মারা যায়। ফলে পোকা বংশ বৃদ্ধি করতে পারে না। উপসহকারী উদ্ভিদ সংরক্ষণ কর্মকর্তা ধ্রুব জ্যোতি সরকার জানান, যে সকল স্থানে আলোক ফাঁদ স্থাপন করা হচ্ছে সেখানে সরেজমিনে পরিদর্শন করি এবং উপস্থিত কৃষকদের উপকারী ও অপকারী পোকা বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা করে অপকারী পোকা দমন ব্যবস্থাপনায় কৃষকদের প্রয়োজনীয় দিক নির্দেশনা দেই। বটিয়াঘাটার সদরের কৃষক সমিরন জোয়ার্দার বলেন, আমরা মনে করতাম ফসলের সব পোকাই ক্ষতি করে তবে আজকে এই আলোক ফাঁদ স্থাপন করে উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা দীপন কুমার হালদার স্যারের মাধ্যমে জানতে পারলাম জমিতে উপকারী পোকাও থাকে। এখন উপকারী ও অপকারী পোকা সনাক্ত করে অপকারী পোকা দমন করতে পারবো।

সার্বিক বিষয়ে উপজেলা কৃষি অফিসার কৃষিবিদ মোঃ আবুবকর সিদ্দিক বলেন, এবার উপজেলায় ১৭৫০০ হেক্টর জমিতে রোপা আমন ধানের চাষ হয়েছে। আর এ আমন ফসল যাতে কোনরকম ক্ষতি না হয় সে ব্যাপারে কৃষকদের উৎসাহিত করার জন্য উপজেলার ২১ টি ব্লকে আলোক ফাঁদের এ উৎসব কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে। আলোক ফাঁদ প্রক্রিয়ায় একটি ক্ষেত ও এর আশপাশের এলাকায় পোকা মাকড়ের পরিস্থিতি এবং উপস্থিতি নির্নয় করা সম্ভব হয়। এছাড়া উপজেলায় পার্চিং পদ্ধতি প্রয়োগ করে ইতিমধ্যে সফলতা পাওয়া গেছে। তিনি বলেন, কৃষকদের আরও সতর্ককরণের জন্য আমার উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তাগণ কৃষকদের নিয়ে দলীয় আলোচনা, উঠান বৈঠক, অতন্দ্র জরিপ, স্কোয়ার্ড টিম গঠন সহ লিফলেট বিতরণ করছে কৃষকদের মাঝে। আশা করি কৃষকেরা এতে দারুন ভাবে উপকৃত হবে।