ঢাকা ০৯:৪২ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১২ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
শিশু অপহরণ মামলার যাবজ্জীবন আসামি ১৩ বছর পর গ্রেফতার যুগান্তরের ২৫ বর্ষে পদার্পণ উপলক্ষে আলোচনা ও দোয়া অনুষ্ঠান লালপুরে মেধাবীদের শিক্ষাবৃত্তি ও অসহায় নারীদের সেলাই মেশিন বিতরণ মাদকমুক্ত ইন্দুরকানী গড়তে আমাদের করণীয় শীর্ষক’ আলোচনা সভা রিয়াদে Dxnএর আয়োজনে আন্তজার্তিক মাতৃভাষা দিবস পালন ও সেমিনার অনুষ্ঠিত ওআইসি সদস্য দেশগুলোর তথ্যমন্ত্রীদের সম্মেলনে যোগ দিতে তুরস্কের উদ্দেশ্যে ঢাকা ছেড়েছেন তথ্য ও সম্প্রচার প্রতিমন্ত্রী নড়াইলে হারিয়ে যাওয়া ২০টি মোবাইল আনুষ্ঠানিকভাবে ভুক্তভোগীদের নিকট হস্তান্তর পরীক্ষা কেন্দ্রে দায়িত্ব অবহেলা পাঁচ শিক্ষককে অব্যাহতি ও দুই শিক্ষর্থীকে বহিস্কার ইসদাইরে অবৈধ ক্যাবল ব্যবসাায়ী বহিস্কৃত যুবলীগ নেতার ফারুক আহমেদ শিমুল ও মনিরুজ্জামান ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান, অফিস সীলগালা লালপুরে বিএনপির চার নেতাকে কারাগারে পাঠিয়েছে আদালত

দামুড়হুদার বিষ্ণুপুরে এক সঙ্গে ৪ সন্তান জন্ম দিলেন এক নারী

হুমায়ন আহমেদ চুয়াডাঙ্গা প্রতিনিধি:
  • আপডেট সময় : ১২:৪৮:৪০ অপরাহ্ন, বুধবার, ১০ মে ২০২৩ ৪৫ বার পড়া হয়েছে
দৈনিক যখন সময় অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

চুয়াডাঙ্গার দামুড়হুদা উপজেলার বিষ্ণুপুরে কল্পনা (২৮) এক প্রসূতি একসঙ্গে ৪ সন্তানের জন্ম দিয়েছেন। মঙ্গলবার (৯ মে) রাতে আঁখি-তারা জেনারেল হাসপাতাল নামের(চুয়াডাঙ্গা) একটি বেসরকারি হাসপাতালে ৪ কন্যা সন্তানের জন্ম দেন। অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে একসঙ্গে চার সন্তানের জন্ম দেন তিনি। গাইনি চিকিৎসক ডা. আকলিমা খাতুনের অস্ত্রোপচারে চার শিশুর জন্ম হয়। তবে চারটি শিশুই অপুষ্ট হওয়ায় তাদের চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। সন্তান ও সন্তানদের মা কল্পনা সুস্থ আছেন। তবে প্রসূতির রক্তরক্ষণ হচ্ছে। চিকিৎসার জন্য তাকে সদর হাসপাতালে পাঠানো হবে

দামুড়হুদা উপজেলার জুড়ানপুর ইউনিয়নের বিষ্ণুপুর দক্ষিণপাড়ার দিনমজুর মাহাবুবের স্ত্রী। এর আগে তাদের নাঈম নামের ১০ বছরের এক ছেলে সন্তান রয়েছে। চার নবজাতকের বাবা দিনমজুর মাহাবুব বলেন, চার কন্যা সন্তান হওয়ায় আমি খুশি, আলহামদুলিল্লাহ। তবে আমি পেশায় দিনমজুর, দিন আনি দিন খাই। এই চার কন্যাসহ পাঁচ সন্তানের জন্য যেমন খুশি লাগছে, ঠিক তেমনই চিন্তায় আছি। ক্লিনিকের বিল মেটানোর সামর্থ্য নেই আমার, প্রশাসন থেকে যদি সহযোগিতা পাই তাহলে সন্তানদের লালন-পালন করা সহজ হবে। আমি ডাক্তার ও হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের প্রতি কৃতজ্ঞ। সবাই আমার সন্তানদের জন্য দোয়া করবেন যেন তারা সুস্থভাবে বেড়ে উঠে।
অস্ত্রোপচার করা চিকিৎসক ডা.আকলিমা খাতুন বলেন, আমার তত্বাবধানে চার শিশুর জন্ম হওয়ায় আমি খুবই খুশি। শিশু ও শিশুদের মা সুস্থ আছেন।
চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালের শিশু বিশেষজ্ঞ ডা. মাহবুবুর রহমান মিলন বলেন, একসঙ্গে জন্ম নেওয়া চার কন্যাসন্তান আমার তত্ত্বাবধানে আছে। তারা কিছুটা অপুষ্ট। তবে অক্সিজেন ছাড়াই বর্তমানে সুস্থ রয়েছে। তাদের মায়ের শারীরিক অবস্থা আশঙ্কাজনক। অতিরিক্ত রক্তক্ষরণ হচ্ছে বলে জেনেছি। তিনি আরও বলেন, এর আগেও যমজ বাচ্চা দেখেছি। একসঙ্গে তিনটা বাচ্চা জন্মগ্রহণ খুব কম হয়। তবে একসঙ্গে চার সন্তানের জন্ম আমার জীবনে এই প্রথম দেখলাম।

নিউজটি শেয়ার করুন

ট্যাগস :

দামুড়হুদার বিষ্ণুপুরে এক সঙ্গে ৪ সন্তান জন্ম দিলেন এক নারী

আপডেট সময় : ১২:৪৮:৪০ অপরাহ্ন, বুধবার, ১০ মে ২০২৩

চুয়াডাঙ্গার দামুড়হুদা উপজেলার বিষ্ণুপুরে কল্পনা (২৮) এক প্রসূতি একসঙ্গে ৪ সন্তানের জন্ম দিয়েছেন। মঙ্গলবার (৯ মে) রাতে আঁখি-তারা জেনারেল হাসপাতাল নামের(চুয়াডাঙ্গা) একটি বেসরকারি হাসপাতালে ৪ কন্যা সন্তানের জন্ম দেন। অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে একসঙ্গে চার সন্তানের জন্ম দেন তিনি। গাইনি চিকিৎসক ডা. আকলিমা খাতুনের অস্ত্রোপচারে চার শিশুর জন্ম হয়। তবে চারটি শিশুই অপুষ্ট হওয়ায় তাদের চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। সন্তান ও সন্তানদের মা কল্পনা সুস্থ আছেন। তবে প্রসূতির রক্তরক্ষণ হচ্ছে। চিকিৎসার জন্য তাকে সদর হাসপাতালে পাঠানো হবে

দামুড়হুদা উপজেলার জুড়ানপুর ইউনিয়নের বিষ্ণুপুর দক্ষিণপাড়ার দিনমজুর মাহাবুবের স্ত্রী। এর আগে তাদের নাঈম নামের ১০ বছরের এক ছেলে সন্তান রয়েছে। চার নবজাতকের বাবা দিনমজুর মাহাবুব বলেন, চার কন্যা সন্তান হওয়ায় আমি খুশি, আলহামদুলিল্লাহ। তবে আমি পেশায় দিনমজুর, দিন আনি দিন খাই। এই চার কন্যাসহ পাঁচ সন্তানের জন্য যেমন খুশি লাগছে, ঠিক তেমনই চিন্তায় আছি। ক্লিনিকের বিল মেটানোর সামর্থ্য নেই আমার, প্রশাসন থেকে যদি সহযোগিতা পাই তাহলে সন্তানদের লালন-পালন করা সহজ হবে। আমি ডাক্তার ও হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের প্রতি কৃতজ্ঞ। সবাই আমার সন্তানদের জন্য দোয়া করবেন যেন তারা সুস্থভাবে বেড়ে উঠে।
অস্ত্রোপচার করা চিকিৎসক ডা.আকলিমা খাতুন বলেন, আমার তত্বাবধানে চার শিশুর জন্ম হওয়ায় আমি খুবই খুশি। শিশু ও শিশুদের মা সুস্থ আছেন।
চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালের শিশু বিশেষজ্ঞ ডা. মাহবুবুর রহমান মিলন বলেন, একসঙ্গে জন্ম নেওয়া চার কন্যাসন্তান আমার তত্ত্বাবধানে আছে। তারা কিছুটা অপুষ্ট। তবে অক্সিজেন ছাড়াই বর্তমানে সুস্থ রয়েছে। তাদের মায়ের শারীরিক অবস্থা আশঙ্কাজনক। অতিরিক্ত রক্তক্ষরণ হচ্ছে বলে জেনেছি। তিনি আরও বলেন, এর আগেও যমজ বাচ্চা দেখেছি। একসঙ্গে তিনটা বাচ্চা জন্মগ্রহণ খুব কম হয়। তবে একসঙ্গে চার সন্তানের জন্ম আমার জীবনে এই প্রথম দেখলাম।