ঢাকা ০৮:৫১ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১২ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
শিশু অপহরণ মামলার যাবজ্জীবন আসামি ১৩ বছর পর গ্রেফতার যুগান্তরের ২৫ বর্ষে পদার্পণ উপলক্ষে আলোচনা ও দোয়া অনুষ্ঠান লালপুরে মেধাবীদের শিক্ষাবৃত্তি ও অসহায় নারীদের সেলাই মেশিন বিতরণ মাদকমুক্ত ইন্দুরকানী গড়তে আমাদের করণীয় শীর্ষক’ আলোচনা সভা রিয়াদে Dxnএর আয়োজনে আন্তজার্তিক মাতৃভাষা দিবস পালন ও সেমিনার অনুষ্ঠিত ওআইসি সদস্য দেশগুলোর তথ্যমন্ত্রীদের সম্মেলনে যোগ দিতে তুরস্কের উদ্দেশ্যে ঢাকা ছেড়েছেন তথ্য ও সম্প্রচার প্রতিমন্ত্রী নড়াইলে হারিয়ে যাওয়া ২০টি মোবাইল আনুষ্ঠানিকভাবে ভুক্তভোগীদের নিকট হস্তান্তর পরীক্ষা কেন্দ্রে দায়িত্ব অবহেলা পাঁচ শিক্ষককে অব্যাহতি ও দুই শিক্ষর্থীকে বহিস্কার ইসদাইরে অবৈধ ক্যাবল ব্যবসাায়ী বহিস্কৃত যুবলীগ নেতার ফারুক আহমেদ শিমুল ও মনিরুজ্জামান ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান, অফিস সীলগালা লালপুরে বিএনপির চার নেতাকে কারাগারে পাঠিয়েছে আদালত

খাতার পাতায় লেখা ছিল “আমার মৃত্যুর জন্য কেউ দায়ী নয়”

রিফাত হোসেন মেশকাত, আক্কেলপুর (জয়পুরহাট) প্রতিনিধিঃ
  • আপডেট সময় : ১০:৩৫:২৬ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১০ ফেব্রুয়ারী ২০২৩ ৮৮ বার পড়া হয়েছে
দৈনিক যখন সময় অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

 

রিফাত হোসেন মেশকাত, আক্কেলপুর (জয়পুরহাট) প্রতিনিধিঃ

জয়পুরহাটের আক্কেলপুরে মায়ের উপর অভিমান করে মেহেরুন নেছা পাপিয়া (১৮) নামে এক কলেজ ছাত্রী নিজ ঘরে গলায় ফাঁস দিয়ে আতহত্যা করেছে। পুলিশ ওই ঘরের খাটের উপর থেকে একটি খাতা উদ্ধার করেছে।সেখানে লিখা ছিল “আমার মৃত্যুর জন্য কেউ দায়ী নয়।
ঘটনাটি ঘটেছে বৃহস্পতিবার বিকেলে উপজেলার সোনামুখী ইউনিয়নের অনন্তপুর গ্রামে। নিহত পাপিয়া ওই গ্রামের মৃত মুনছুর আলীর মেয়ে।
বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন আক্কেলপুর থানারা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবু বকর সিদ্দিক।
পুলিশ ও নিহতের পরিবার সূত্রে জানা গেছে,বৃহস্পতিবার সকালে পাপিয়া আক্কেলপুর মুজিবর রহমান সরকারি কলেজে গিয়েছিল। সে ওই কলেজের শিক্ষার্থী ছিলেন। কলেজ থেকে দুপুরের পর বাড়ি ফিরেছিল পাপিয়া। ওই সময় তাঁর মা পারুল আক্তার কলেজ থেকে আসতে দেড়ি হলো কেন বলে পাপিয়াকে বকাঝকা করে। এতেই সে সকলের অগোচরে ঘরের দরজা বন্ধ করে ঘরের বাঁশের আঁড়ার সাথে গলায় ওরনা পেঁচিয়ে আতœহত্যা করে।
নিহতের মা পারুল আক্তার বলেন, কলেজ থেকে দেড়িতে বাড়ি আসায় আমি একটু বকা দিয়েছিলাম। এতেই অভিমান করে ওই কাজ করেছে। আমার মেয়ের আগে থেকেই খুব রাগ ছিল। একটুতেই সে রেগে যেত বলে তিনি জানান।
স্থানীয় ইউপি সদস্য সাগর হোসেন বলেন, মেয়েটি খুব রাগীত ছিল। একটুতেই সে রেগে যেত। এর আগেও সে রাগ করে কিটনাশক পানে আতহত্যার চেষ্টা করেছিল। আজ শুনি সে মায়ের উপর অভিমান করে গলায় ফাঁস দিয়ে আতহত্যা করেছে। কিছুদিন আগে ওই বাড়ির পাশের একটি মেয়েও একই ভাবে আতহত্যা করেছিল।
ওসি আবু বকর সিদ্দিক বলেন, খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়েছি। মেয়েটি তাঁর নিজ ঘরেই গলায় ফাঁস দিয়ে আতহত্যা করেছে। তাঁর ঘরের খাটের উপরে একটি খাতার পাতায় লিখা ছিল “আমার মৃত্যুর জন্য কেউ দায়ী নয়। আমি ওই লেখাটি মেয়েটির অন্য লেখার সাথে মিলিয়ে দেখেছি। নিহতের পরিবার থেকে কোন অভিযোগ না থাকায় লাশ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।
তিনি আরো বলেন কিছুদিন আগে ওই বাড়ির পাশের একটি মেয়েও চিরকুট লিখে একইভাবে আতহত্যা করেছিল। সেও চিরকুটে লিখেছিল “আমার মৃত্যুর জন্য কেউ দায়ী নয়। প্রত্যেক অভিভাবকদের কাছে অনুরোধ ছেলে মেয়েদের প্রতি যতশীল আচরণ করতে হবে। তা না হলে এমন ঘটনা ঘটতেই থাকবে।

 

নিউজটি শেয়ার করুন

ট্যাগস :

খাতার পাতায় লেখা ছিল “আমার মৃত্যুর জন্য কেউ দায়ী নয়”

আপডেট সময় : ১০:৩৫:২৬ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১০ ফেব্রুয়ারী ২০২৩

 

রিফাত হোসেন মেশকাত, আক্কেলপুর (জয়পুরহাট) প্রতিনিধিঃ

জয়পুরহাটের আক্কেলপুরে মায়ের উপর অভিমান করে মেহেরুন নেছা পাপিয়া (১৮) নামে এক কলেজ ছাত্রী নিজ ঘরে গলায় ফাঁস দিয়ে আতহত্যা করেছে। পুলিশ ওই ঘরের খাটের উপর থেকে একটি খাতা উদ্ধার করেছে।সেখানে লিখা ছিল “আমার মৃত্যুর জন্য কেউ দায়ী নয়।
ঘটনাটি ঘটেছে বৃহস্পতিবার বিকেলে উপজেলার সোনামুখী ইউনিয়নের অনন্তপুর গ্রামে। নিহত পাপিয়া ওই গ্রামের মৃত মুনছুর আলীর মেয়ে।
বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন আক্কেলপুর থানারা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবু বকর সিদ্দিক।
পুলিশ ও নিহতের পরিবার সূত্রে জানা গেছে,বৃহস্পতিবার সকালে পাপিয়া আক্কেলপুর মুজিবর রহমান সরকারি কলেজে গিয়েছিল। সে ওই কলেজের শিক্ষার্থী ছিলেন। কলেজ থেকে দুপুরের পর বাড়ি ফিরেছিল পাপিয়া। ওই সময় তাঁর মা পারুল আক্তার কলেজ থেকে আসতে দেড়ি হলো কেন বলে পাপিয়াকে বকাঝকা করে। এতেই সে সকলের অগোচরে ঘরের দরজা বন্ধ করে ঘরের বাঁশের আঁড়ার সাথে গলায় ওরনা পেঁচিয়ে আতœহত্যা করে।
নিহতের মা পারুল আক্তার বলেন, কলেজ থেকে দেড়িতে বাড়ি আসায় আমি একটু বকা দিয়েছিলাম। এতেই অভিমান করে ওই কাজ করেছে। আমার মেয়ের আগে থেকেই খুব রাগ ছিল। একটুতেই সে রেগে যেত বলে তিনি জানান।
স্থানীয় ইউপি সদস্য সাগর হোসেন বলেন, মেয়েটি খুব রাগীত ছিল। একটুতেই সে রেগে যেত। এর আগেও সে রাগ করে কিটনাশক পানে আতহত্যার চেষ্টা করেছিল। আজ শুনি সে মায়ের উপর অভিমান করে গলায় ফাঁস দিয়ে আতহত্যা করেছে। কিছুদিন আগে ওই বাড়ির পাশের একটি মেয়েও একই ভাবে আতহত্যা করেছিল।
ওসি আবু বকর সিদ্দিক বলেন, খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়েছি। মেয়েটি তাঁর নিজ ঘরেই গলায় ফাঁস দিয়ে আতহত্যা করেছে। তাঁর ঘরের খাটের উপরে একটি খাতার পাতায় লিখা ছিল “আমার মৃত্যুর জন্য কেউ দায়ী নয়। আমি ওই লেখাটি মেয়েটির অন্য লেখার সাথে মিলিয়ে দেখেছি। নিহতের পরিবার থেকে কোন অভিযোগ না থাকায় লাশ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।
তিনি আরো বলেন কিছুদিন আগে ওই বাড়ির পাশের একটি মেয়েও চিরকুট লিখে একইভাবে আতহত্যা করেছিল। সেও চিরকুটে লিখেছিল “আমার মৃত্যুর জন্য কেউ দায়ী নয়। প্রত্যেক অভিভাবকদের কাছে অনুরোধ ছেলে মেয়েদের প্রতি যতশীল আচরণ করতে হবে। তা না হলে এমন ঘটনা ঘটতেই থাকবে।