ঢাকা ১২:০৭ অপরাহ্ন, শনিবার, ০২ মার্চ ২০২৪, ১৯ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
নড়াইলে ডিবি পুলিশের অভিযানে ইয়াবাসহ গ্রেফতার বেইলি রোডের আগুন নিয়ন্ত্রণে প্রশংসনীয় ভূমিকা পালন করেছেন র‍্যাব-৩ নাটোরের লালপুর তাফসীর মাহফিলে খৃষ্টান যুবকের ইসলাম ধর্ম গ্রহন নারায়ণগঞ্জ  শহিদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে বইমেলায় কবিদের উত্তরীয় দিয়ে বরণ কুড়িগ্রামে ৫.১ কেজি গাঁজাসহ মাদক কারবারি গ্রেফতার কৃষক হত্যা মামলায় জয়পুরহাটে ৯ জনের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড কুড়িগ্রামের উলিপুরে রাস্তা পাকা করন কাজের উদ্বোধন গাজীপুরে মাদ্রাসার সুপার ও সভাপতির দূর্ণীতি, অপসারণ দাবিতে মানববন্ধন নড়াইলের শান্তা সেনের মেডেকেল শিক্ষা জীবন সম্পন্ন করতে দারিদ্র বাবা-মায়ের দুঃশিন্তা নড়াইলে শিশু নুসরাত হত্যার রহস্য উদঘাটন ঘাতক সৎ মা গ্রেফতার

কালাইয়ে মসজিদ নির্মাণের টাকা পরিশোধে প্রধানমন্ত্রীর উপহারের ঘর বন্ধক

মোঃ শাহারুল ইসলাম, কালাই (জয়পুরহাট) উপজেলা প্রতিনিধি:
  • আপডেট সময় : ০১:৪৪:১১ অপরাহ্ন, সোমবার, ১৭ এপ্রিল ২০২৩ ৬২ বার পড়া হয়েছে
দৈনিক যখন সময় অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

জয়পুরহাটের কালাইয়ে মসজিদ নির্মাণের টাকা পরিশোধ করতে মুজিববর্ষে প্রধানমন্ত্রীর দেওয়া উপহারের ঘর বন্ধক দেওয়া নিয়ে এলাকায় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলার মাত্রাই ইউনিয়নের কাঁটাহার আশ্রয়ন প্রকল্প এলাকায়।
জানা গেছে, মাত্রা ইউনিয়ন কাঁটাহার গ্রামের ইয়াবালী মন্ডল ও তার ছেলে ফেরদৌসের নিজের বসতভিটা না থাকায় মাথা গোজার ঠাঁই হিসেবে প্রধানমন্ত্রীর দেওয়া উপহারের একটি ঘর পেয়েছেন তিনি। নানা কারণে ঋণগ্রস্ত হয়ে পড়ায়৷

কাঁটাহার আশ্রয়ণ প্রকল্পের সেক্রেটারি হওয়াই মসজিদ নির্মাণের গচ্ছিত ৯০ হাজার টাকা ব্যাংক থেকে তুলে নিয়ে আসার পথে হারিয়েছে মর্মে ফেরদৌস এত টাকা দিতে অক্ষমতা প্রকাশ করলে শেষ পর্যন্ত এলাকার কয়েকজন মুরব্বির মাধ্যমে বগুড়ার শিবগঞ্জ উপজেলার পীরব ইউনিয়নের মিরপুর গ্রামে। মৃত: তনোয়ার হোসেনের ছেলে মাছুমের কাছে প্রধানমন্ত্রীর দেওয়া ঘর বন্ধক রাখার শার্তে এক লাখ ত্রিশ হাজার টাকা প্রদান করেন।

জানতে চাইলে মাসুম বলেন আমার বাড়ি বগুড়ার শিবগঞ্জ হলেও আমি কাটার গামে ছোটবেলা থেকে বড় হয়েছি তাদের সাথে আমার সম্পর্ক ভালো হওয়াই ফেরদউস ঋণগ্রস্ত হয়ে পড়েছে বলে আমাকে অবগত করলে ওই ঘড় বাবদ দেড় লাখ টাকা দিয়েছে৷

আশ্রয়ন প্রকল্পের সভাপতি ও স্থানীয়রা বিষয়টি সত্যতা স্বীকার করে জানান, লিখিত স্ট্যাম্পে লেখাপড়া করে বন্ধক নিয়েছে মাছুম৷

কালাই উপজেলার সহকারী কমিশনার (ভূমি)জান্নাতুল ফেরদৌস বলেন, কাঁটাহার আশ্রয়ণ প্রকল্পের একটি ঘড় বন্ধকী রাখা হয়েছে তদন্ত সাপেক্ষে আমরা আইগত ব্যবস্থা নেব।

এ বিষয়ে কালাই উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) জান্নাত আরা তিথি বলেন,আশ্রয়ণ প্রকল্পের ঘর বিক্রি করা বা বন্ধকী রাখা আইনত অপরাধ। আশ্রয়ণ প্রকল্পের ঘর কোনোভাবেই বিক্রি বা দ্বিতীয় পক্ষের কাছে হস্তান্তরের সুযোগ নেই।

নিউজটি শেয়ার করুন

ট্যাগস :

কালাইয়ে মসজিদ নির্মাণের টাকা পরিশোধে প্রধানমন্ত্রীর উপহারের ঘর বন্ধক

আপডেট সময় : ০১:৪৪:১১ অপরাহ্ন, সোমবার, ১৭ এপ্রিল ২০২৩

জয়পুরহাটের কালাইয়ে মসজিদ নির্মাণের টাকা পরিশোধ করতে মুজিববর্ষে প্রধানমন্ত্রীর দেওয়া উপহারের ঘর বন্ধক দেওয়া নিয়ে এলাকায় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলার মাত্রাই ইউনিয়নের কাঁটাহার আশ্রয়ন প্রকল্প এলাকায়।
জানা গেছে, মাত্রা ইউনিয়ন কাঁটাহার গ্রামের ইয়াবালী মন্ডল ও তার ছেলে ফেরদৌসের নিজের বসতভিটা না থাকায় মাথা গোজার ঠাঁই হিসেবে প্রধানমন্ত্রীর দেওয়া উপহারের একটি ঘর পেয়েছেন তিনি। নানা কারণে ঋণগ্রস্ত হয়ে পড়ায়৷

কাঁটাহার আশ্রয়ণ প্রকল্পের সেক্রেটারি হওয়াই মসজিদ নির্মাণের গচ্ছিত ৯০ হাজার টাকা ব্যাংক থেকে তুলে নিয়ে আসার পথে হারিয়েছে মর্মে ফেরদৌস এত টাকা দিতে অক্ষমতা প্রকাশ করলে শেষ পর্যন্ত এলাকার কয়েকজন মুরব্বির মাধ্যমে বগুড়ার শিবগঞ্জ উপজেলার পীরব ইউনিয়নের মিরপুর গ্রামে। মৃত: তনোয়ার হোসেনের ছেলে মাছুমের কাছে প্রধানমন্ত্রীর দেওয়া ঘর বন্ধক রাখার শার্তে এক লাখ ত্রিশ হাজার টাকা প্রদান করেন।

জানতে চাইলে মাসুম বলেন আমার বাড়ি বগুড়ার শিবগঞ্জ হলেও আমি কাটার গামে ছোটবেলা থেকে বড় হয়েছি তাদের সাথে আমার সম্পর্ক ভালো হওয়াই ফেরদউস ঋণগ্রস্ত হয়ে পড়েছে বলে আমাকে অবগত করলে ওই ঘড় বাবদ দেড় লাখ টাকা দিয়েছে৷

আশ্রয়ন প্রকল্পের সভাপতি ও স্থানীয়রা বিষয়টি সত্যতা স্বীকার করে জানান, লিখিত স্ট্যাম্পে লেখাপড়া করে বন্ধক নিয়েছে মাছুম৷

কালাই উপজেলার সহকারী কমিশনার (ভূমি)জান্নাতুল ফেরদৌস বলেন, কাঁটাহার আশ্রয়ণ প্রকল্পের একটি ঘড় বন্ধকী রাখা হয়েছে তদন্ত সাপেক্ষে আমরা আইগত ব্যবস্থা নেব।

এ বিষয়ে কালাই উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) জান্নাত আরা তিথি বলেন,আশ্রয়ণ প্রকল্পের ঘর বিক্রি করা বা বন্ধকী রাখা আইনত অপরাধ। আশ্রয়ণ প্রকল্পের ঘর কোনোভাবেই বিক্রি বা দ্বিতীয় পক্ষের কাছে হস্তান্তরের সুযোগ নেই।