ঢাকা ০১:১৮ অপরাহ্ন, শনিবার, ০২ মার্চ ২০২৪, ১৯ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
নড়াইলে ডিবি পুলিশের অভিযানে ইয়াবাসহ গ্রেফতার বেইলি রোডের আগুন নিয়ন্ত্রণে প্রশংসনীয় ভূমিকা পালন করেছেন র‍্যাব-৩ নাটোরের লালপুর তাফসীর মাহফিলে খৃষ্টান যুবকের ইসলাম ধর্ম গ্রহন নারায়ণগঞ্জ  শহিদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে বইমেলায় কবিদের উত্তরীয় দিয়ে বরণ কুড়িগ্রামে ৫.১ কেজি গাঁজাসহ মাদক কারবারি গ্রেফতার কৃষক হত্যা মামলায় জয়পুরহাটে ৯ জনের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড কুড়িগ্রামের উলিপুরে রাস্তা পাকা করন কাজের উদ্বোধন গাজীপুরে মাদ্রাসার সুপার ও সভাপতির দূর্ণীতি, অপসারণ দাবিতে মানববন্ধন নড়াইলের শান্তা সেনের মেডেকেল শিক্ষা জীবন সম্পন্ন করতে দারিদ্র বাবা-মায়ের দুঃশিন্তা নড়াইলে শিশু নুসরাত হত্যার রহস্য উদঘাটন ঘাতক সৎ মা গ্রেফতার

আসন্ন কুড়িগ্রাম-২ সদর আসনে কারা পাচ্ছেন নমিনেশন

হীমেল কুমার মিত্র স্টাফ রিপোর্টার
  • আপডেট সময় : ০৯:৫৮:০৮ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১১ মে ২০২৩ ২৫০ বার পড়া হয়েছে
দৈনিক যখন সময় অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

কুড়িগ্রাম সদর, রাজারহাট ও ফুলবাড়ী উপজেলা নিয়ে কুড়িগ্রাম-২ সংসদীয় আসন গঠিত। কুড়িগ্রামের ৪টি আসনের মধ্যে রাজনৈতিক দলগুলোর কাছে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ও মর্যাদার এ সদর আসনটি।

জানা গেছে, স্বাধীনতা পরবর্তী সময়ে আওয়ামীলীগ দলীয় প্রার্থী একবার এ আসনে সরাসরি নির্বাচিত হলেও বেশির ভাগ সময়ই জাতীয়পাটি ও বিএনপির প্রার্থীর দখলে ছিল আসনটি। বর্তমান এ আসনের এমপি জাতীয় পার্টির নেতা পনির উদ্দিন আহমেদ। প্রশাসন তথা জেলা নিয়ন্ত্রণে রাখতে এ আসনটি দখলে রাখার নিরন্তন চেষ্টা সব দলের।

আগামী নির্বাচনে যে কোন মূল্যে এ আসনটি দখলে রাখতে চায় স্থানীয় আওয়ামীলীগ। এ পরিকল্পনা বাস্তবায়নে মাঠ পর্যায়ে দলের সাংগঠনিক কার্যক্রম চলছে জোড়ালো ভাবে। সেই সাথে তুলে ধরা হচ্ছে আওয়ামীলীগের উন্নয়নের ফিরিস্তি। বর্তমান সরকার কুড়িগ্রাম কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা, অর্থনৈতিক এর স্থান ও জায়গা নির্বাচন, ইকোপার্কের জায়গা নির্বাচন, কুড়িগ্রাম জেলার ৯টি উপজেলায় ১াট করে মডেল মসজিদ নির্মান, জেলায় প্রধানমন্ত্রীর উপহার গৃহহীনদের জন্য জমিসহ একটি করে প্রায় ৪ কিস্তিতে ৫ হাজার ঘর প্রদান, ধরলার দুই তীরে বাঁধ ও নদী খনন রোধের ব্যবস্থা করণ এবং শেখ হাসিনা ধরলা সেতু নির্মাণ। এসব কাজ এখন দৃশ্যমান। জেলার উন্নায়ন নিয়ে খুব খুশী আওয়ামীলীগের নেতা কর্মীদের সাথে সাধারণ ভোটাররা। তারপরও মহাজোটের অংশীদারীত্বে এ আসন ছাড়তে নারাজ জাপা। এ কারনে আগামী নির্বাচনে এ আসনে কোন দলের প্রার্থী মনোয়ন পাবে তা জানেনা কেউ। তবে তথ্যসূত্রে জানা যায় যে, আওয়ামীলীগের একাধিক প্রার্থী মনোনয়নের জন্য জোড় লবিং করছে কেন্দ্রে। স্থানীয়রা মনে করছেন এ আসনে আওয়ামীলীগে ২টি গ্রুপে বিভক্ত। এতে দ্বিধা বিভক্তিতে পড়েছে সাধারণ ভোটাররা।
স্থানীয় আওয়ামীলীগের নেতারা মনে করেন বড় দলের বিভক্তি খুব স্বাভাবিক। তবে নির্বাচন আসলেই এ বিভক্তি থাকবে না। নেত্রী যাকে মনোনয়ন দিবে তারা সকলেই ঐক্যব্ধ ভাবে কাজ করবে। ২০০৮ এর নির্বাচনে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসাইন মোহাম্মদ এরশাদ এ আসনে নির্বাচিত হন। তিনি আসনটি ছেড়ে দিলে উপ-নির্বাচনে আওয়ামীলীগের তৎকালীন সাধারণ সম্পাদক মো: জাফর আলী বিপুল ভোটে বিএনপি প্রার্থী তাজুল ইসলাম চৌধুরীকে পরাজিত করেন। এমপি নির্বাচিত হয়ে জাফর আলী দলীয় সহায়তায় কুড়িগ্রামে অনেক উন্নয়ন কর্মকান্ড সম্পন্ন করেন। কুড়িগ্রামের ২ আসনে বিএনপির অবস্থান ভাল থাকলেও দলটি ২টি গ্রুপে বিভক্ত হওয়ায় জনপ্রিয়তা কমেছে। এক গ্রুপের নেতৃত্ব দিচ্ছেন জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক সাইফুর রহমান রানা অন্য গ্রুপে জেলা বিএনপির সভাপতি তাসবিরুল ইসলাম। এ আসনে বিএনপির সাধারণ ভোটার থাকলেও দলের বিভক্তি থাকার কারণে অনেক এক হতে পারছে না। আগামী সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে তাদের মাঝে এখন হতাশা রাড়ছে। সময় যত এগিয়ে আসছে ততই দ্বিধা দ্বন্দ্বে ভুগছেন তারা।
খোজঁ নিয়ে জানা গেছে জেলায় জাতীয় পার্টির সাংগঠনিক অবস্থা দুর্বল। জেলা ও উপজেলায় পাল্টাপাল্টি কমিটির কারণে সাংগঠনিক তৎপরতা কমে গেছে। জেলায় জাতীয় পার্টির বলতেই বর্তমান এমপি পনির উদ্দিন আহমেদ। তিনি তার পছন্দের লোকজনদের দিয়েই বিভিন্ন কর্মকান্ড পরিচালনা করেন। জাতীয় পার্টির বিকল্প প্রার্থী হিসেবে বাংলাদেশ বিমানের সাবেক পরিচালক মেজর (অব:) আব্দুস সালাম বিলবোর্ড দিয়ে বিভিন্ন উৎসবে জনগনকে শুভেচ্ছা জানান। মাঝে মধ্যে নির্বাচনী এলাকায় গণসংযোগও করেন তিনি। মেজর সালাম জানিয়েছেন, তিনি মনোনয়নের ব্যাপারে যথেষ্ট আশাবাদী।

আওয়ামীলীগের সম্ভাব্য প্রার্থীরা হচ্ছেন সাবেক সংসদ সদস্য, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও বর্তমান জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মো. জাফর আলী, সাধারণ সম্পাদক ও বর্তমান সদর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আমান উদ্দিন আহমেদ মঞ্জু, জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি আবু মোঃ সাঈদ হাসান লোবান, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক এজিএস সভাপতি অ্যাড.আব্রাহাম লিংকন, জেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক রাসেদুজ্জামান বাবু, কুড়িগ্রাম জেলা আওয়ামীলীগের সদস্য, যুবলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও বর্তমান যুবলীগের আহ্বায়ক আলহাজ্ব এডভোকেট মোঃ রুহুল আমিন দুলাল এবং নিটোর সাবেক পরিচালক ও ফুলবাড়ী উপজেলা আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা মন্ডলীর সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা ডাক্তার মোঃ হামিদুল হক খন্দকার, তারা সবাই যার যার মতো করে গণসংযোগ ও সামাজিক সাংস্কৃতিক কর্মসূচিতে অংশ নিচ্ছেন।

কুড়িগ্রাম জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক, আমান উদ্দিন আহমেদ মঞ্জু মহাজোটের বর্তমান সংসদ সদস্য জাতীয় পার্টির পনির উদ্দিন আহমেদের সম্বনয়হীনতার অভিযোগ তোলেন। তিনি জানান, জনগন সরকারের উন্নয়ন কর্মকান্ড বঞ্চিত হচ্ছে। তাই উন্নয়নের স্বার্থে আমরা কুড়িগ্রাম-২ আসনে আমাদের দলীয় প্রার্থী চাই।
জেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি আব্রহাম লিংকন জানান, আমি গ্রামে গঞ্জে ছুটছি। নেত্রী যদি একবার সুযোগ দেয় তা হলে জেলার ভাগ্য পরির্বতনে সর্বাত্মক চেষ্টা করবো।

তরুন নেতা আবু মোঃ সাঈদ হাসান লোবান জানান, জেলা আওয়ামীলীগ একটি সুংগঠিত দল। সারা দেশের একমাত্র জেলা কুড়িগ্রাম যেখানে সদর আসনের এমপি আওয়ামীলীগের নেই।

যুবলীগ নেতা আলহাজ্ব এডভোকেট মোঃ রুহুল আমিন দুলাল জানান, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা সারাদেশে অনেক উন্নয়ন করেছেন। এ উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে এবং গরিব অসহায় মানুষের ভাগ্য পরিবর্তনে কুড়িগ্রাম সদর আসনে নৌকার বিকল্প নেই। কিন্তু গত নির্বাচনে মহাজোটের কারণে জাতীয় পার্টিকে আসনটি ছেড়ে দেয়ায় আমাদের সদর আসনটিতে অনেক উন্নয়ন থেকে বঞ্চিত হয়েছে। এছাড়াও নদী বাঁধে তেমন কোন উল্লেখযোগ্য ভূমিকা রাখতে পারেনি জাপার বর্তমান এ সাংসদ। তবে জননেত্রী শেখ হাসিনাকে আবারও দেশের প্রধানমন্ত্রী করার লক্ষ্যে, দল থেকে নেত্রী যাকেই নমিনেশন দেবেন সকলে মিলে তার পক্ষেই কাজ করার অঙ্গীকার ব্যক্ত করেন আহ্বায়ক,বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ কুড়িগ্রাম জেলা শাখা, সদস্য, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ, কুড়িগ্রাম জেলা শাখার এ নেতা।

নিউজটি শেয়ার করুন

ট্যাগস :

আসন্ন কুড়িগ্রাম-২ সদর আসনে কারা পাচ্ছেন নমিনেশন

আপডেট সময় : ০৯:৫৮:০৮ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১১ মে ২০২৩

কুড়িগ্রাম সদর, রাজারহাট ও ফুলবাড়ী উপজেলা নিয়ে কুড়িগ্রাম-২ সংসদীয় আসন গঠিত। কুড়িগ্রামের ৪টি আসনের মধ্যে রাজনৈতিক দলগুলোর কাছে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ও মর্যাদার এ সদর আসনটি।

জানা গেছে, স্বাধীনতা পরবর্তী সময়ে আওয়ামীলীগ দলীয় প্রার্থী একবার এ আসনে সরাসরি নির্বাচিত হলেও বেশির ভাগ সময়ই জাতীয়পাটি ও বিএনপির প্রার্থীর দখলে ছিল আসনটি। বর্তমান এ আসনের এমপি জাতীয় পার্টির নেতা পনির উদ্দিন আহমেদ। প্রশাসন তথা জেলা নিয়ন্ত্রণে রাখতে এ আসনটি দখলে রাখার নিরন্তন চেষ্টা সব দলের।

আগামী নির্বাচনে যে কোন মূল্যে এ আসনটি দখলে রাখতে চায় স্থানীয় আওয়ামীলীগ। এ পরিকল্পনা বাস্তবায়নে মাঠ পর্যায়ে দলের সাংগঠনিক কার্যক্রম চলছে জোড়ালো ভাবে। সেই সাথে তুলে ধরা হচ্ছে আওয়ামীলীগের উন্নয়নের ফিরিস্তি। বর্তমান সরকার কুড়িগ্রাম কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা, অর্থনৈতিক এর স্থান ও জায়গা নির্বাচন, ইকোপার্কের জায়গা নির্বাচন, কুড়িগ্রাম জেলার ৯টি উপজেলায় ১াট করে মডেল মসজিদ নির্মান, জেলায় প্রধানমন্ত্রীর উপহার গৃহহীনদের জন্য জমিসহ একটি করে প্রায় ৪ কিস্তিতে ৫ হাজার ঘর প্রদান, ধরলার দুই তীরে বাঁধ ও নদী খনন রোধের ব্যবস্থা করণ এবং শেখ হাসিনা ধরলা সেতু নির্মাণ। এসব কাজ এখন দৃশ্যমান। জেলার উন্নায়ন নিয়ে খুব খুশী আওয়ামীলীগের নেতা কর্মীদের সাথে সাধারণ ভোটাররা। তারপরও মহাজোটের অংশীদারীত্বে এ আসন ছাড়তে নারাজ জাপা। এ কারনে আগামী নির্বাচনে এ আসনে কোন দলের প্রার্থী মনোয়ন পাবে তা জানেনা কেউ। তবে তথ্যসূত্রে জানা যায় যে, আওয়ামীলীগের একাধিক প্রার্থী মনোনয়নের জন্য জোড় লবিং করছে কেন্দ্রে। স্থানীয়রা মনে করছেন এ আসনে আওয়ামীলীগে ২টি গ্রুপে বিভক্ত। এতে দ্বিধা বিভক্তিতে পড়েছে সাধারণ ভোটাররা।
স্থানীয় আওয়ামীলীগের নেতারা মনে করেন বড় দলের বিভক্তি খুব স্বাভাবিক। তবে নির্বাচন আসলেই এ বিভক্তি থাকবে না। নেত্রী যাকে মনোনয়ন দিবে তারা সকলেই ঐক্যব্ধ ভাবে কাজ করবে। ২০০৮ এর নির্বাচনে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসাইন মোহাম্মদ এরশাদ এ আসনে নির্বাচিত হন। তিনি আসনটি ছেড়ে দিলে উপ-নির্বাচনে আওয়ামীলীগের তৎকালীন সাধারণ সম্পাদক মো: জাফর আলী বিপুল ভোটে বিএনপি প্রার্থী তাজুল ইসলাম চৌধুরীকে পরাজিত করেন। এমপি নির্বাচিত হয়ে জাফর আলী দলীয় সহায়তায় কুড়িগ্রামে অনেক উন্নয়ন কর্মকান্ড সম্পন্ন করেন। কুড়িগ্রামের ২ আসনে বিএনপির অবস্থান ভাল থাকলেও দলটি ২টি গ্রুপে বিভক্ত হওয়ায় জনপ্রিয়তা কমেছে। এক গ্রুপের নেতৃত্ব দিচ্ছেন জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক সাইফুর রহমান রানা অন্য গ্রুপে জেলা বিএনপির সভাপতি তাসবিরুল ইসলাম। এ আসনে বিএনপির সাধারণ ভোটার থাকলেও দলের বিভক্তি থাকার কারণে অনেক এক হতে পারছে না। আগামী সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে তাদের মাঝে এখন হতাশা রাড়ছে। সময় যত এগিয়ে আসছে ততই দ্বিধা দ্বন্দ্বে ভুগছেন তারা।
খোজঁ নিয়ে জানা গেছে জেলায় জাতীয় পার্টির সাংগঠনিক অবস্থা দুর্বল। জেলা ও উপজেলায় পাল্টাপাল্টি কমিটির কারণে সাংগঠনিক তৎপরতা কমে গেছে। জেলায় জাতীয় পার্টির বলতেই বর্তমান এমপি পনির উদ্দিন আহমেদ। তিনি তার পছন্দের লোকজনদের দিয়েই বিভিন্ন কর্মকান্ড পরিচালনা করেন। জাতীয় পার্টির বিকল্প প্রার্থী হিসেবে বাংলাদেশ বিমানের সাবেক পরিচালক মেজর (অব:) আব্দুস সালাম বিলবোর্ড দিয়ে বিভিন্ন উৎসবে জনগনকে শুভেচ্ছা জানান। মাঝে মধ্যে নির্বাচনী এলাকায় গণসংযোগও করেন তিনি। মেজর সালাম জানিয়েছেন, তিনি মনোনয়নের ব্যাপারে যথেষ্ট আশাবাদী।

আওয়ামীলীগের সম্ভাব্য প্রার্থীরা হচ্ছেন সাবেক সংসদ সদস্য, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও বর্তমান জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মো. জাফর আলী, সাধারণ সম্পাদক ও বর্তমান সদর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আমান উদ্দিন আহমেদ মঞ্জু, জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি আবু মোঃ সাঈদ হাসান লোবান, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক এজিএস সভাপতি অ্যাড.আব্রাহাম লিংকন, জেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক রাসেদুজ্জামান বাবু, কুড়িগ্রাম জেলা আওয়ামীলীগের সদস্য, যুবলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও বর্তমান যুবলীগের আহ্বায়ক আলহাজ্ব এডভোকেট মোঃ রুহুল আমিন দুলাল এবং নিটোর সাবেক পরিচালক ও ফুলবাড়ী উপজেলা আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা মন্ডলীর সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা ডাক্তার মোঃ হামিদুল হক খন্দকার, তারা সবাই যার যার মতো করে গণসংযোগ ও সামাজিক সাংস্কৃতিক কর্মসূচিতে অংশ নিচ্ছেন।

কুড়িগ্রাম জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক, আমান উদ্দিন আহমেদ মঞ্জু মহাজোটের বর্তমান সংসদ সদস্য জাতীয় পার্টির পনির উদ্দিন আহমেদের সম্বনয়হীনতার অভিযোগ তোলেন। তিনি জানান, জনগন সরকারের উন্নয়ন কর্মকান্ড বঞ্চিত হচ্ছে। তাই উন্নয়নের স্বার্থে আমরা কুড়িগ্রাম-২ আসনে আমাদের দলীয় প্রার্থী চাই।
জেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি আব্রহাম লিংকন জানান, আমি গ্রামে গঞ্জে ছুটছি। নেত্রী যদি একবার সুযোগ দেয় তা হলে জেলার ভাগ্য পরির্বতনে সর্বাত্মক চেষ্টা করবো।

তরুন নেতা আবু মোঃ সাঈদ হাসান লোবান জানান, জেলা আওয়ামীলীগ একটি সুংগঠিত দল। সারা দেশের একমাত্র জেলা কুড়িগ্রাম যেখানে সদর আসনের এমপি আওয়ামীলীগের নেই।

যুবলীগ নেতা আলহাজ্ব এডভোকেট মোঃ রুহুল আমিন দুলাল জানান, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা সারাদেশে অনেক উন্নয়ন করেছেন। এ উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে এবং গরিব অসহায় মানুষের ভাগ্য পরিবর্তনে কুড়িগ্রাম সদর আসনে নৌকার বিকল্প নেই। কিন্তু গত নির্বাচনে মহাজোটের কারণে জাতীয় পার্টিকে আসনটি ছেড়ে দেয়ায় আমাদের সদর আসনটিতে অনেক উন্নয়ন থেকে বঞ্চিত হয়েছে। এছাড়াও নদী বাঁধে তেমন কোন উল্লেখযোগ্য ভূমিকা রাখতে পারেনি জাপার বর্তমান এ সাংসদ। তবে জননেত্রী শেখ হাসিনাকে আবারও দেশের প্রধানমন্ত্রী করার লক্ষ্যে, দল থেকে নেত্রী যাকেই নমিনেশন দেবেন সকলে মিলে তার পক্ষেই কাজ করার অঙ্গীকার ব্যক্ত করেন আহ্বায়ক,বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ কুড়িগ্রাম জেলা শাখা, সদস্য, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ, কুড়িগ্রাম জেলা শাখার এ নেতা।